শ্রীনগরে সরকারি জমি দখলকারী অহিদুলের খুঁটির জোড় কোথায়?

নিজস্ব প্রতিবেদক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০১:৪৯ PM, ২২ মার্চ ২০২২

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার রাঢ়িখাল মৌজায় ১নং খাস খতিয়ানে এসএ দাগ নং ৪৪৩, আরএস দাগ নং ১৬৮৫’র ৭০ শতাংশ নাল জমি ভরাট করার পাশাপাশি প্রায় অর্ধশতাধিক গাছ কর্তন করা হয়েছে। অপরদিকে ওই সম্পত্তির উত্তর পাশে শ্রীনগর-দোহার আন্ত:সড়কের প্রায় ৪৩০ ফুট জেলা পরিষদের জায়গা দখলের জন্য মাটি ভরাট করা হয়েছে। বাগান বাড়ির মৃত আবেদ আলীর সরদারের ছেলে এলাকার চিহ্নিত দখলবাজ মো. অহিদুল সরদারের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। এনিয়ে গত ৩ মার্চ ও ৪ মার্চ বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় সরকারি সম্পত্তি দখল ও গাছ কর্তনের সচিত্র প্রতিবেদ প্রকাশিত হলেও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কোন ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি। এরই মধ্যে কর্তনকৃত প্রায় ২ লাখ টাকার বিভিন্ন জাতের গাছ সরিয়ে ফেলা হয়েছে। অপরদিকে ড্রাম ট্রাক দিয়ে মাটি এনে জায়গাটি ভরাট ও পাকা দেয়াল নির্মাণের কাজ করছে অহিদুলগং। এনিয়ে জনমনে প্রশ্ন উঠেছে অহিদুল সরদারের খুঁটির জোড় কোথায়? স্থানীয় ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা উত্তম কুমার সাহা সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অন্যদিকে মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদের সার্ভেয়ার মো. ইসমাঈল খন্দকার বলেছিলেন মাটি ভরাটকারীদের নোটিশ পাঠানো হবে।

সরেজমিনে দেখা যায়, শ্রীনগর-দোহার আন্ত:সড়কের বাগানবাড়ি হাবিব স্যানেটারী সংলগ্ন সড়কের দক্ষিণ পাশে রাস্তার ওপর টিনের বেড়া দিয়ে সরকারের ৭০ শতাংশ খাস সম্পত্তি মাটি ভরাটের কাজ প্রায় শেষ। দেখা যায়, জায়গায় থাকা গাছ কেটে মাটি দিয়ে ঢেকে ফেলা হয়েছে। এর মধ্যে সড়কে টিনের বেড়া সংলগ্ন জেলা পরিষদের ভরাটকৃত জায়গায় শ্রমিকরা পাকা দেয়াল নির্মাণের কাজ করছেন।

জানা যায়, ১১/১১/১৯৭৫ সনের বন্দোবস্ত দলিল নং-১০৪২১’র বালাশুর গ্রামের আবু মোল্লার নিকট বন্ধোবস্ত প্রদান করে। শর্ত রয়েছে উক্ত সম্পত্তি ১৫ বছরের মধ্যে কোনরকম হস্তান্তর করা যাবে না। কিন্তু সরকারের নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে অহিদুলগং সরকারি সম্পত্তি আত্মসাৎ উদ্দেশে সরকারি গাছ কর্তন ও মাটি ভরাট করে শর্ত ভঙ্গ করে।

এলাকাবাসী জানায়, অহিদুল সরদার সরকারি লিজকৃত জমি কেনাবেচা করে। নিরীহ মানুষ তার কাছ থেকে জমি কিনে হয়রানির শিকার হন। এনিয়ে গত ১৮ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে প্রভাবশালী অহিদুলের বিরুদ্ধে প্রায় ৪০টি পরিবার এলাকায় বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচির ডাক দেয়। প্রায় দুই মাস আগে জমি দখল করতে গিয়ে প্রতিবেশী নীলচাঁন ও তার স্ত্রীর ওপর হামলা চালায়। এ ঘটনায় অহিদুলের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়। এছাড়াও দীর্ঘদিন যাবত অর্পিত সম্পত্তি দখল চেষ্টায় ভূইফোর সংগঠনের নামে সাইনবোর্ড সাটিয়ে রাখে জমিদার কুমার বাহাদুরের পরিত্যাক্ত বাড়িতে।

এ ব্যাপরে অহিদুল সরদারের জানতে চাইলে তিনি বলেন, সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে আলাপ করেই কাজ করা হচ্ছে। পত্রিকায় লেখা লেখি করে কি হবে? এ সময় ওহিদুলের ভাই সাইদুল সরদার বলেন টাকা দিয়ে কাজ করছি সমস্যা কোথায়।

এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ব্যারিস্টার সজীব আহমেদ বলেন, নোটিশ দেওয়া হয়েছে। তার পরেও কাজ করে থাকলে এখনই ব্যবস্থা নিচ্ছি।

আপনার মতামত লিখুন :